Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles Free|আল্প আরসালান ভলিউম ২৩ বাংলা সাবটাইটেল

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

আল্প আরসালান ভলিউম ২৩ বাংলা সাবটাইটেল দেখুন পোস্টের নিচে

মোস্তাফা কামাল আতাতুর্ক পাশার আচরণ ছিল যেমন

আতাতুর্ক উসমানি খেলাফতের সাথে এমন আচরণ করেছে, যা খেলাফতের কোনো শক্র অথবা ওপনিবেশবাদী কোনো রাষ্ট্রও কল্পনা করবে না। কেউ কি কল্পনা করছিল যে, খেলাফতরাস্ট্রের বুকে স্থাপিত মসজিদগুলো তালাবদ্ধ করা
হবে? কেউ কি ভেবেছিল ৫০০ বর্গমিটার এরিয়ায় একাধিক মসজিদ নির্মাণে নিষেধাজ্ঞা আসতে পারে? কিন্তু আতাতুর্ক সে কাজটিও করেছে। প্রকাশ ঘোষণা করা হয়__“ইসলামি চেতনা উন্নতির পথে অন্তরায়।”

মসজিদের প্রতি তার বৈরিতা ও ক্র্যাকডাউন এখানেই শেষ নয়; বরং মসজিদের খতিবদের সংখ্যা কমিয়ে দেয়৷ কেবল ৩০০ খতিবের বেতন-ভাতা সরকার প্রদান করবে বলে ঘোষণা করে। ইস্তান্থুলের প্রসিদ্ধ দুটি মসজিদ বন্ধ করে দেয়।
এমনকি শত শত মসজিদের নির্মাণশৈলী পরিবর্তন করে। আয়া সুফিয়া মসজিদকে মিউজিয়াম এবং মসজিদে ফাতিহকে গুদামঘর বানিয়ে ফেলে।

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles ৩ বাংলা সাবটাইটেল
Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles

আতাতুর্ক পশ্চিমা দৃষ্টিভঙ্গি লালন করত এবং প্রকাশ্যে তা ঘোষণাও করে৷ ইউরোপকে নিজের আদর্শ হিসেবে গ্রহণ করে। আতাতুর্কই পাশ্চাত্যের সংস্কৃতিকে তুরস্কের সরকারি বিধান হিসেবে সর্বপ্রথম ঘোষণা করে। তুরক্কের
নতুন প্রজন্মকে পাশ্চাত্য সংস্কৃতি গ্রহণ এবং তা সামনে এগিয়ে দেওয়া উচিত বলে ঘোষণা দেয়। এমন কথাও বলে, “জনগণের শক্তিকে নিরাপত্তা এবং মানবীয় স্বভাবকে ধারণকারী সংস্কৃতি হলো তা-ই; যা মানুষকে মিস্টার এবং
মিসেস বানিয়ে দেয়। জীবন উপভোগের জন্য পশ্চিমা সংস্কৃতি পুরো দুনিয়াবাসীর গ্রহণ করা উচিত।”*

নেতৃস্থানীয় কিছু লোক ইজমিরে বসবাস করত। ইজমিরে বসবাসরত ইহুদিদের সাথে তাদের ভালো সম্পর্ক ছিল। সেখানকার জনৈক ইছুদিকন্যা লতিফা হানিমের সাথে আতাতুর্কের বিবাহ সম্পন্ন হয়। বিবাহের আচার-অনুষ্ঠান পশ্চিমা
রীতিনীতি অবলম্বনে করা হয়, যাতে ইসলামি কৃষ্টি-কালচারের প্রতি মানুষের অনীহা সৃষ্টি হয়। আতাতুর্ক এখানেই ক্ষান্ত হয়নি; সে তার স্ত্রীকে সঙ্জিত করে

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles ৩ বাংলা সাবটাইটেল
Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles

পুরো শহর প্রদাক্ষণ করে৷ স্ত্রী ছল স্পষ্ট ফিতনা; সম্মোহনী। পরপুক্ণষেব সাথে অবাধে মিশত। নিলজ্ভ পোশাকে বাইরে চলাফেরা করত, যাতে ইসলাম পর্দাপ্রথা ধ্বংস করা যায়। আতাতৃর্কের মিশন বাস্তবায়নে সে এগুলো করত, যাতে নারীর উপব পুকষের কর্তৃত্ব খর্বের আন্দোলন পৃণতা পায়। সবাই যেন বুঝতে পারে, এই লোকটি মহিলাদেরকে পূর্ণ স্বাধীনতা দিতে চায়। তাই আমোদ, প্রমোদের অনুষ্ঠানে মহিলাদের উপস্থিত হতে উদ্ু্ করত।

তুর্কি টুপি পরিধান করা ইসলামি নিদর্শন না-হলেও উসমানি খেলাফতের স্মৃতি বহন করত। এ জন্য আতাতুর্ক তুকি টুপি নিষেধ করে ইউরোপীয় ট্রাপ পরিধানের নির্দেশ দেয়। তুর্কি জনমন এমনকি বিশ্ব-মুসলিমের অন্তরে ইস্তাম্বুলের প্রতি ছিল আলাদা আকর্ষণ। তাই আতাতুর্ক ইস্তাম্বুলের পরিবর্তে আক্কারাকে নতুন রাষ্ট্রের রাজধানী ঘোষণা করে। মিসর, ইরান, আফগানিস্তান, হিন্দুস্তান এমনকি পুরো মুসলিমবিশ্ব আতাতুর্কের এসকল পদক্ষেপে প্রভাবিত হচ্ছিল।

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

তার এসব পদক্ষেপ পশ্চিমা দালালচক্রের হাতে সুযোগ এনে দেয়। তারা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার স্লোগান তুলে ময়দানে নেমে পড়ে এবং উদাহরণ হিসেবে তুরস্কের কথা উল্লেখ করে। পশ্চিমাবিশ্ব, জায়োনিস্ট এবং ফ্রিম্যাসনবাদীদের প্রযোজনায় পরিচালিত মিসরের ইসলামবিদ্বেষী আল আহরাম, আস পিয়াসাহ এবং আল মৃবগতিম ইত্যাদি সংবাদপত্র আতাতুর্ককে অভিনন্দন জানায়। তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে ওঠে। আতাতুর্কের কার্যকলাপকে এসকল পত্রিকা সঠিক বলে ঘোষণা করেছিল। তার নিত্যনতুন নির্দেশনাকে শতভাগ সমর্থন করছিল। তারা এমনভাবে বিষয়গুলো উপস্থাপন করছিল, যেন আধুনিক তুরস্কের সাথে ইসলামের কোনো সম্পর্ক নেই। তাদের ভাষ্যমতে, “প্রাচীন নীতি তথা ইসলাম-নির্দেশিত পন্থায় দেশ ও জাতির উন্নয়ন সম্ভব নয়।”**

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles ৩ বাংলা সাবটাইটেল
Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles

আমির শাকিব আরসালান” বলেন, পশ্চিমাবিশ্বের ধর্মনিরপেক্ষ রাষ্ট্রগুলো পর্যস্ত ইনজিলের বিধিবিধানে হস্তক্ষেপ করেনি। ধর্সীয় নেতৃবৃন্দের প্রচলিত রীতিনীতি এমনকি সংস্কৃতিতে কোনো পরিবর্তন আনেনি। কোনো গির্জাও বন্ধ করেনি। কিন্তু তুরস্কের আধুনিক প্রশাসন এক্ষেত্রে রাশিয়ার বলসেভিক প্রশাসনের মতো শতভাগ ইসলামবিরোধী ভূমিকায় ছিল।

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

দুঃখজনক হলেও সত্য, মুসলিমবিশ্বের শাসকদের কাছে আতাতুর্ক “আদর্শপুরুষে” পরিণত হয়। পরবর্তী শাসকদের মধ্যে আতাতুর্কের স্বৈরাচারী রীতিনীতির প্রভাব পরিলক্ষিত হয়। ইসলাম নির্মলের জন্য পশ্চিমা ওঁপনিবেশবাদকে যথেষ্ট সমর্থন দেয় সে। যেমনিভাবে ফ্রান্স উত্তর আফ্রিকার দেশগুলোকে খ্রিষ্টান বানানো এবং জনগণকে ইসলামবিদ্বেষী করে তোলার
সর্বাত্রক চেষ্টা করেছিল। তারা স্পষ্ট বলে, তুর্কিরা জন্মগত মুসলমান। তাই তুর্কিদের চেয়ে বেশিমাত্রায় ইসলাম লালন আফ্রিকানদের জন্য জরুরি নয়।*

আতাতুর্ক তার নতুন শাসনব্যবস্থার ঢাল হিসেবে একাধিক আইন প্রণয়ন করে। যেকোনো বিদ্বোহ দমনে তা ছিল কার্যকর। বিশেষত ১৯২৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে জারিকৃত জাতীয় বিশ্বাসঘাতকতা-আইন উল্লেখযোগ্য। ধর্মের নামে কিংবা ধর্মভিত্তিক যেকোনো রাজনৈতিক সংগঠন ছিল এই আইনের আওতাধীন। ঠিক সেভাবে সরকারবিরোধী যেকোনো তৎপরতা এবং মৌখিক সমালোচনা ছিল চূড়ান্ত বিশ্বাসঘাতকতা ও জঘন্য আপরাধ। এমন অপরাধীকে আদালত দ্রুততমসময়ে মৃত্যুদণ্ড প্রদান করত।

আইনের মাধ্যমে পার্লামেন্ট মেম্বারকে গ্রেফতার না-করার বিধান রহিত করে দেয়। প্রতিপক্ষদের হত্যার জন্য আতাতুর্ক গোপন পরিকল্পনা করে। বিরোধী নেতাদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়। আদালত তাদের ফাঁসির দণ্ড প্রাদান করে।”

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

আইন প্রয়োগে আতাতুর্ক মারাস্্ক কড়াকড়ি করত। পশ্চিমা সংস্কৃতি গ্রহণে পূর্ণতা লাভের পর যখন তার নিকটাত্বীয়দের থেকে সমালোচনা শুরু হয়, তখন তার এ মনোভাব পূর্ণ প্রকাশ পায়। এ সময় তাকে মারাত্মক অস্বস্তিকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়। কিন্ত নিজের দৃঢ়তা ও পাষাণ-হৃদয় দ্বারা সবাইকে কিছু অংশ মুখস্থ করেছিলেন। বৈরুতের বিভিন্ন মাদরাসায় পড়ালেখা করেছেন। আরবি সাহিত্য ও রাজনৈতিক ইতিহাসবিদ হিসেবে প্রসিদ্ধ ছিলেন৷

Alparslan buyuk seljuk 23 bangla subtitles 

 

Leave a Comment

Ads Blocker Image Powered by Code Help Pro

Ads Blocker Detected!!!

We have detected that you are using extensions to block ads. Please support us by disabling these ads blocker.

Powered By
Best Wordpress Adblock Detecting Plugin | CHP Adblock